মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ মে ২০১৭

বানী ও জীবন বৃত্তান্ত

বানী

আসসালামু আলায়কুম,

আমি মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সপ্তম মেয়র। বাংলাদেশের উত্তর -পশ্চিম  অংশে রাজশাহী একটি সুন্দর নগরী। ১৮৭৬ খৃষ্টাব্দে রাজশাহী মিউনিসিপালটি হিসাবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পর থেকে উহা পৌরসভা; পৌর কর্পোরেশন সবশেষ ১৯৯১ সালে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হয়।

রাজশাহী প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সম্প্রিতীর একটি নগরী। সিল্ক শিক্ষা নগরী হিসেবে এটি বহুল পরিচিত। দীর্ঘ সময় ধরে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন সুনামের সাথে নগরীতে নাগরিক সেবা আধুনিক উপায়ে প্রদান করে আসছে এবং তা চলমান আছে। নগরবাসীর আশা আকাংখা বর্ধিত চাহিদার সাথে সংগতি রেখে সিটি কর্পোরেশন যুগপোযোগী সেবা প্রদানসহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন প্রাতিষ্ঠানিক সেবা প্রদানে সক্ষম হয়েছে। ইতোমধ্যে নগরবাসীর চাহিদা অনুযায়ী নগরীর রাস্তাঘাট উন্নয়ন,মোড় প্রশস্তকরণ, বিনোদনের ব্যবস্থাকরণ, রাস্তাঘাট আলোকায়ন, সবুজায়ন ইত্যাদি কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

আমার লক্ষ্য মহানগরীর সম্পদ, সংস্কৃতি, পরিবেশ ইত্যাদি রক্ষা এদের সমন্বয়ে একটি সুখী সমৃদ্ধশালী আধুনিক নগরী গড়ে তোলা যাতে নগরীর শিশুদের মুখে সর্বদা হাসি থাকে, যুব সম্প্রদায়ের অন্তরে রঙিন স্বপ্ন আর বয়স্কদের মনে থাকে সুখ নিরাপত্তার প্রশান্তি। আধুনিক প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ সার্বক্ষনিকভাবে নগরবাসীকে অল্প সময়ে কাঙ্খিত সেবা প্রদান করেতে চায়।

রাজশাহী মহানগরীকে আরো সুন্দর, পরিচ্ছন্ন, পরিবেশ বান্ধব আধুনিক সবুজ নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে আমি সংকল্প বদ্ধ। নগরবাসী সিটি পরিষদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আকর্ষনীয়, নান্দনিক সুন্দর নগরী গড়ে তোলাই আমার লক্ষ্য উদ্দেশ্য।

আপনাদের সকলের সহযোগিতা সুচিন্তিত মতামত একান্তভাবে কামনা করছি।

জীবন বৃত্তান্ত
দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী জনাব মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ১৯৬৫ সালের ৫ই জুন জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম ডা. আব্দুর রশীদ মাতা ফাতেমা বেগম। তিনি শিরোইল সরকারী হাই স্কুল থেকে ১৯৮১ সালে এসএসসি, রাজশাহী সরকারী সিটি কলেজ হতে ১৯৮৪ সালে এইচএসসি, ১৯৮৬ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক, একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮৮ সালে এমএসএস ১৯৯২ সালে এলএলবি ডিগ্রী অর্জন করেন। রাজনৈতিক অভিজ্ঞ জনাব বুলবুল ১৯৮২ সালে সরকারী সিটি কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচিত ক্রীড়া সম্পাদক, ১৯৮৫ সালে রাজশাহী কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক, ১৯৯০ সালে রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি, ১৯৯১ সালে রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি, ১৯৯৪ সালে রাজশাহী জেলা যুবদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, ১৯৯৮ সালে রাজশাহী মহানগর যুবদলের আহবায়ক, ২০০২ সালে কেন্দ্রীয় যুবদলের যুগ্ম-সম্পাদক, ২০০৩ সালে রাজশাহী মহানগর যুবদলের সভাপতি, ২০১০ সালে পুনরায় রাজশাহী মহনগর যুবদলের আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও ২০১০ সালে তিনি বিএনপি' জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তাঁকে ১৯৮৯, ১৯৯০, ২০১২,২০১৫ ও ২০১৬ সালে কারাবরণ করতে হয়। রাজনীতির পাশাপাশি সামাজিক কর্মকান্ডেও তিনি বিশেষ অবদান রেখেছেন। তিনি শহীদ জিয়াউর রহমান শারীরিক শিক্ষা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছাড়াও বিভিন্ন প্রশাসনিক সামাজিক প্রতিষ্ঠানের সভাপতি, উপদেষ্টা সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং করছেন।  

২০০৮ সালে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে তিনি মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ২০১৩ সালের ১৫ জুন অনুষ্ঠিত রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আনারস প্রতীক নিয়ে তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বিকে ৪৭৩৩২ ভোটে পরাজিত করে ,৩১,০৫৮ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। ২১ জুলাই ২০১৩ তারিখে তিনি শপথ গ্রহণ করেন।

তিন ভাই তিন বোনের মধ্যে সবার বড় জনাব বুলবুল ১৯৯৬ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাঁর সহধর্মীনি রেবেকা সুলতানা সিমি পেশায় গৃহীনী হলেও রাজনৈতিক সামাজিক কর্মকান্ডে তিঁনি জনাব বুলবুলকে সর্বাত্নক সহযোগিতা প্রদান করে আসছেন। তাঁদের সন্তান সাদাত হোসাইন আলফী রাজশাহী ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড স্কুল এন্ড কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের ছাত্র কন্যা সুবাইতা বিনতে হুসাইন রাজশাহী ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড স্কুলের ৫ শ্রেণীর ছাত্রী।


Share with :
Facebook Facebook